কলিকাতা হারবাল পেয়ারা পাতায় দূর হবে যৌ’ন রোগ, সাথে বন্ধ হবে আপনার চুল পরা।পেয়ারা পাতার উপকারিতা কী তা জানলে সত্যি অবাক হতে হয়।

পেয়ারা পাতায় দূর হবে যৌ’ন রোগ, সাথে বন্ধ হবে আপনার চুল পরা।পেয়ারা পাতার উপকারিতা কী তা জানলে সত্যি অবাক হতে হয় - কলিকাতা হারবাল

November 17, 2019

সুস্থ থাকাটা সব মানুষেরই প্রধান লক্ষ্য।কে না চায় সুস্থ থাকতে,ভালো থাকতে।আর আপনার দেহের শারীরিক যত্ন যদি হয় পেয়ারা পাতা দিয়ে তবে খারাপই বা কি,তাইনা? হাতের কাছে থাকা এই সাধারণ জিনিসটি আপনাকে রাখতে পারে সুস্থ,মেলাতে পারে অনেকগুলো সমস্যার সমাধান। চুলের যত্ন থেকে শুরু করে কাশির সমস্যা সবকিছুর সমাধান মিলবে এই পেয়ারা পাতা থেকেই।তবে চলুন দেরী না করে জেনে নেওয়া যাক,পেয়ারা পাতার বিশেষ উপকারী দিকগুলো। চুলের যত্নে পেয়ারা পাতা:পেয়ারা থেকে পেয়ারার পাতাই কিন্তু আপনার চুলের জন্য বেশি উপকারী। চুল পড়া টেনশনে যাদের রাতের ঘুম হারাম তাদের জন্য আছে এক কার্যকরি উপায়।এক লিটার পানিতে একমুঠো পেয়ারা পাতা দিয়ে ভালো করে গরম করে ফুটিয়ে নিন। এবার দ্রবণটিকে কক্ষ তাপমাত্রায় ঠান্ডা করুন। তেলের মত মাথার ত্বক থেকে শুরু করে আগা পর্যন্ত দ্রবনটি লাগান। প্রতিদিন ব্যবহারে আপনার চুলপড়ার হার অনেকাংশে কমে যাবে।পেয়ারা পাতার রস আপনার চুলের গোড়া করবে পোক্ত আর চুল করবে আরো সতেজ। পেটব্যাথা,আমশয় এবং ডায়রিয়া থেকে মুক্তি পেতে পেয়ারা পাতা: পেয়ারা পাতাতে রয়েছে অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য। সেদ্ধ পেয়ারা পাতার দ্রবন সেবনে আপনি পেতে পারে ডায়রিয়া বা পেট ব্যাথার মত সমস্যাগুলো থেকে মুক্তি। মুখ অভ্যন্তরের চিকিৎসায় পেয়ারা পাতা: বলা হয়ে থাকে,পেয়ারা পাতা চিবুলে মুখের ভেতরের সার্বিক সচলতা বৃদ্ধি পায়। কালশেটে মাড়ি, দাঁতের ব্যাথা ইত্যাদি থেকে মুক্তি পেতে পেয়ারা পাতার জুড়ি নেই। অনেকের মুখ থেকে বেশ বাজে গন্ধ হয়। তারা সময় পেলে পেয়ারা পাতা চিবুতে পারেন। উপকার পাবেন।

আরও পড়ুন- 

রক্তের শর্করা কমাতে পেয়ারা পাতা: ডায়বেটিস রোগীদের জন্য পেয়ারা পাতা যেন আশির্বাদ স্বরূপ। কেননা, পেয়ারা পাতা দিয়ে বানানো চা নিয়মিত পান করলে,এই চা দেহের ইনসুলিন এর মাত্রা বৃদ্ধি ব্যাতিত ই শরীরের রক্তের শর্করার পরিমাণ কমাতে পারে। শ্বাসকষ্ট জনিত রোগে পেয়ারা পাতা:পেয়ারা পাতা শ্বসনতন্ত্রের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলে।এটা ব্রংকাইটিস এবং কাশির জন্য একটি চিকিৎসা হিসাবে ব্যবহার করা হয়। দেখলেন তো আশেপাশে থাকা সাধারণ পেয়ারা পাতা আসলে কত উপকারী! আপনি যদি সতেজ এবং সুস্থ থাকতে চান তবে আজকে থেকেই শারীরিক যত্নে পেয়ারা পাতার ব্যবহার শুরু করুন।পেয়ারা পাতার বিষ্ময়কর কিছু উপকারিতা 
আপনারা সবাইতো পেয়ারা ফলের কথা জানেন। পেয়ারা পাতাও সবার কাছে অনেক পরিচিত। আজকে আপনাদের বলব পেয়ারা পাতার কিছু বিষ্ময়কর উপকারিতা।আমরা সবাই পেয়ারা খেতে ভালবাসি এবং খেয়েও থাকি। কিন্তু আপনাদের মধ্যে কয়জন আছে, যারা পেয়ারা পাতা খেয়ে থাকেন। কয়জন জানে পেয়ারা পাতার স্বাস্থ্যগুণ সম্পর্কে। আসলে পেয়ারায় রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, পটাশিয়াম। এ ছাড়া পেয়ারা পাতায় রয়েছে কিছু অসাধারণ স্বাস্থকর গুণ।(১) পেয়ারা পাতার চা বানিয়ে নিয়মিত খেলে এটি রক্তের বাজে কোলেস্ট্রলের মাত্রা অনেক কমিয়ে দেয়। পেয়ারার পাতা রক্তে ভালো কোলেস্টলের মাত্রা ও বাড়ায়। (২) পেয়ারা পাতার চায়ের মধ্যে থাকা এন্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদানের জন্য এটি ডায়রিয়া ও ডিসেন্ট্রি কমাতে কাজ করে থাকে। (৩) কফ ও ব্রঙ্কাইটিস কমাতেও পেয়ারা পাতার চা খুব কার্যকরি।(৪) পেয়ারা পাতার চা ওজন কমাতে সাহায্য করে। এটি চর্বি কমাতে কাজ করে এবং পেট ভরা ভরা রাখে। ফলে ওজন কমে যায়। 

আরও পড়ুন- 

(৫) ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য নিয়মিত পেয়ারার চা পান করা ভালো। এটি রক্তে কোলেস্টলের মাত্রা কমাতে কাজ করে।(৬) পেয়ারা পাতা রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে থাকে। এ পাতা রক্তকে অতিরিক্ত ঘন হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করে এবং রক্ত চলাচল সচল রাখে। (৭) পেয়ারা পাতা পানিতে ফুটান। এর পর ঠান্ডা হতে দিন। ঠান্ডা হলে পানি চুলে মাসাজ করুন। এতে চুল পড়া কমবে।আপনারা যারা পেয়ারা পাতা ব্যবহার করতেন না। পেয়ারা পাতা গাছ থেকে পড়ে নষ্ট হয়ে যেত তারা আজ থেকে সচেতন হন। আর পেয়ারা পাতা নষ্ট হতে না দিয়ে এ পাতার চা বানিয়ে খান। তবে আপনার শরীর থাকবে সুস্থ, সবল ও কার্যক্ষম। চুল পড়া রোধ করে পেয়ারা পাতা:চুল পড়া কমাতে পেয়ারা পাতার রস ত্বকে ও চুলে ব্যবহার করা যেতে পারে। এই রস ব্যবহার চুল হবে মসৃন ও ঝকঝকে। বিশেষঞ্জদের মতে, পেয়ারা পাতা ভিটামিন বি ও মিনারেলে ভরপুর। ভিটামিন বি চুলকে পুষ্টি সমৃদ্ধ করে।পেয়ারা পাতায় থাকা ভিটামিন বি নষ্ট হয়ে যাওয়া হেয়ার রুটের কোষ মেরামত করে চুলকে মসৃন করে তোলে। তবে পেয়ারা পাতার রস সরাসরি চুলে না দেওয়াই ভালো। অনেকগুলো পরিষ্কার পেয়ারা পাতা নিয়ে তা এক লিটার পানিতে ফুটিয়ে নিতে হবে। ১৫ – ২০ মিনিট সেই পানি ফুটতে দিতে হবে। এতে পেয়ারা পাতার সমস্ত গুণাগুণ পানিতে চলে আসবে।এরপর পেয়ারা পাতার পানি ঠান্ডা করে ছেকে শিশিতে সংরক্ষন করা যেতে পারে। সংরক্ষন করা পানি প্রতিদিন চুলের গোড়া ও চুলে ভালো করে ম্যাসাজ করে লাগিয়ে নিতে হবে। কয়েক মাসের মধ্যে তফাৎ আপনি বুঝতে পারবেন।(৮) পেয়ারা পাতা পরিপাকতন্ত্রের সমস্যা দূর করে। এ পাতায় অনেক ব্যাক্টেরিয়া প্রতিরোধক শক্তি আছে। যা অন্ত্রকে ক্ষারীয় করে জীবানু বৃদ্ধি রোধ করতে সাহায্য করে। এ পাতা অতিরিক্ত মিউকাস ক্ষরণ রোধ করে। তাই ডাইরিয়া বা পরিপাকতন্ত্রের সমস্যা দূর করতে এটি খুবই উপকারি।(৯) পেয়ারা পাতা ক্যান্সার রোগের বিরুদ্ধেও কাজ করে থাকে। এ পাতায় প্রচুর এন্টি অক্সিডেন্ট লাইকোফেন থাকে। যা ক্যান্সার প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে। স্তন ক্যান্সার, জরায়ু মুখের ক্যান্সারে এ পাতা খুবই কার্যকর।(১০) পেয়ারা পাতা সর্দি-কাশি নিরাময় করে থাকে। এ পাতায় রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি ও আয়রন। যা বেশি মিউকাস ক্ষরনে বাধা দিয়ে থাকে। এটি জীবানুর বংশ বৃদ্ধি রোধ করতেও সাহায্য করে। এ ক্ষেত্রে কাচা পেয়ারা অনেক বেশি উপকারি।(১১) পেয়ারা পাতা অ্যালার্জির পাশ্বপ্রতিক্রিয়া রোধক হিসেবে কাজ করে। এ পাতা দেহে হিস্টামিন তৈরি প্রক্রিয়া 

আরও পড়ুন- 

আপনার সাস্থ সেবা নিশ্চিত করতে  সরাসরি ডাক্তারের সাথে কথা বলুন। কলিকাতা হারবাল কেয়ার  একটি আধুনিক আয়ুর্বেদ চিকিৎসা কেন্দ্র।

tag: 

 কলিকাতা হারবাল  কলিকাতা হারবাল কেয়ার   কলিকাতা হারবাল ডাক্তার  kolikata herbal care kolikata herbal kolikata herbal dhaka kolikata herbal doctor kolikata herbal medicine original kolikata herbal kolikata herbal treatment kolikata herbal mohammadpur popular kolikata harbal  কলিকাতা হারবাল ঔষধ