Awesome Image

গাজরের উপকারিতা ও স্বাস্থ্য গুণাগুণ জানলে আপনি আশ্চর্য হয়ে যাবেন।

July 11, 2020

গাজর একটি মূলজ সবজি। এর বৈজ্ঞানিক নাম ডকাশ ক্যারোটা। গাজরকে বলা হয় সুপার ফুড। গাজর যেমন পুষ্টিকর, তেমনি শরীরের জন্য দারুণ উপকারী। গাজরের ভিটামিন ও মিনারেল দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আঁশজাতীয় উপাদান। শরীরের টকসিন দূর করতে গাজরের জুরি নেই। শরীরে পুষ্টি ও বিকাশে গাজর খুবই প্রয়োজন।
গাজর সাধারণত কমলা রঙের হয় যদিও বেগুনি, কালো, লাল, সাদা এবং হলুদ জাতের জাত গাজর রয়েছে। গাজর অত্যন্ত পুষ্টিকর, সুস্বাদু এবং খাদ্যআঁশসমৃদ্ধ শীতকালীন সবজি, যা প্রায় সারা বছরই পাওয়া যায়। তরকারি ও সালাদ হিসেবে গাজর খাওয়া যায়। এ ছাড়া গাজর দিয়ে অনেক সুস্বাদু খাবার তৈরি করা যায়। তবে রান্না করে খাওয়ার চেয়ে গাজর কাঁচা খাওয়া বেশি ভালো। কারণ এতে পুষ্টির অপচয় কম হয়। প্রতি ১০০ গ্রাম গাজরে রয়েছে : ক্যারোটিন -৫২০ মাইক্রোগ্রাম ।
শর্করা -১২.৭ গ্রাম ।আমিষ -১.২ গ্রাম ।
জলীয় অংশ - ৮৫ গ্রাম । ক্যালসিয়াম - ২৭ মিলি গ্রাম । আয়রন - ২.২ মিলি গ্রাম । ভিটামিন বি১ - ০.০৪ মিলি গ্রাম । ভিটামিন বি ২ - ০.০৫ মিলি গ্রাম । চর্বি - ০.২ গ্রাম । ভিটামিন সি - ১৫ মিলি গ্রাম । আঁশ - ১.২ গ্রাম । অন্যান্য খনিজ - ০.৯ গ্রাম । খাদ্য শক্তি - ৫৭ ক্যালরি । নিম্নে গাজরের কিছু গুরুত্বপূর্ণ উপকার সম্পর্কে আলোচনা করা হ’ল-
১. দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধি করে : গাজরে আছে বিটা ক্যারোটিন যা আমাদের লিভারে গিয়ে ভিটামিন এ তে বদলে যায়। পরে সেটি চোখের রেটিনায় গিয়ে চোখের দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে, সেই সাথে রাতের বেলায় অন্ধকারেও চোখে ভাল দেখার জন্য দরকারি এমন এক ধরনের বেগুনি পিগমেন্টের সংখ্যা বাড়িয়ে দৃষ্টিশক্তি ভাল রাখতে সাহায্য করে। ২. ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়: গাজর খেলে ক্যান্সারের ঝুঁকি কম থাকে। গাজরে আছে ফ্যালকেরিনল এবং ফ্যালকেরিনডায়ল যা আমাদের শরীরে অ্যান্টিক্যান্সার উপাদানগুলোকে পূর্ণ করে। তাই গাজর খেলে ব্রেস্ট, কোলন, ফুসফুসের ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি অনেকটাই কমে যায়। গাজরে বিদ্যমান ফ্যালক্যারিনল ও ফ্যালক্যারিডিওল ফুসফুস ও অন্ত্রের ক্যান্সারসহ অন্যান্য ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। ৩। ত্বক সুন্দর করে : গাজর ত্বককে ভেতর থেকে সুন্দর করে তুলতে সাহায্য করবে। এর ভিটামিন এ ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ত্বকের রোদে পোড়া ভাব দূর করে।